• শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০২:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ঘোড়াঘাটে এক যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার নারী ঐক্য পরিষদের আয়োজনে দুঃস্থ নারীদের আত্মকর্মসংস্থানের উদ্দেশ্যে বøক ও বাটিক কোর্সের উদ্বোধন প্রভাষক উৎপল কুমার সরকারকে সহ সারাদেশে শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় দিনাজপুরে বাশিস নেতৃবৃন্দের ক্ষোভ ঐতিহাসিক সাঁওতাল বিদ্্েরাহের ১৬৭তম দিবস পালন উপলক্ষে ৭ দফা বাস্তবায়নের দাবীতে দিনাজপুরে ৪টি সংগঠনের যৌথভাবে বিভিন্ন কর্মসুচী পালন চিরিরবন্দরে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ১ ঘোড়াঘাট পৌরসভার বাজেট ঘোষণা অতিবৃষ্টিপাতে দিনাজপুরের নদীর পানিতে নিম্মাঞ্চল প্লাবিত \ আত্রাই নদীর পানি বিপদসীমার উপরে প্রবাহিত দিনাজপুরে কিং ব্রান্ড সিমেন্টের হালখাতা অনুষ্ঠিত স্বাস্থ্য সেবা প্রদানকারীদের সাথে সংলাপ অনুষ্ঠানে সিভিল সার্জন এলাকার জনপ্রতিনিধিদের স্বাস্থ্য বিভাগের সেবা কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত করতে হবে আটোয়ারীতে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্ণামেন্টের উপজেলা পর্যায়ে ফাইনাল খেলা

জিনজিয়াং চীনের ফ্যাঁসিবাদী চরিত্রকে উন্মোচিত করেছে

ঠাকুরগাঁও সংবাদ ডেস্ক : / ১০৮ বার পঠিত
প্রকাশের সময় | শুক্রবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২১

মোঃ মজিবর রহমান শেখ,, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি,,জিনজিয়াং অঞ্চলে বসবাসকারী উইঘুর মুসলমানদের মানবাধিকারের লঙ্ঘন’ চীনের বর্তমান প্রজন্মের শাসকদের ফ্যাসিবাদী প্রকৃতির মুখোশ উন্মোচন করেছে। উইঘুরদের ওপর চিনা দমন নিপীড়নের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক মতামতের সংহতি, মাই হোক এমন কিছু যাকে অপেক্ষা করা চীনের পক্ষে কঠিন হবে। বিবিসি প্রধান ব্রিটিশ মিডিয়া যা মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের সীমান্তে যে কিছু দমনমূলক পদক্ষেপের সম্মুখীন হয়েছে তা প্রকাশ করার ক্ষেত্রে একটি দুর্দান্ত ভূমিকা পালন করেছে। ২০২১ সালের মার্চ মাসে বেইজিং-এ বিবিসির সংবাদদাতা জন সুডওয়ার্থকে নিরাপত্তা উদ্যোগের কারণে তার পরিবারসহ তাইওয়ানের জন্য চীন ছেড়ে যেতে হয়েছিল। নয় বছর ধরে চীন থেকে রিপোর্ট করে সুডওয়ার্থ ২০২০ সালে জিনজিয়াং অঞ্চলে মুসলমানদের জন্য বন্দিশিবিরের কথা প্রকাশ করার জন্য একটি জর্জ পোঞ্চ পুরস্কার জিতে ছিল। এমন কেউ এই শিবির গুলি বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র যেখানে অপব্যবহারের কথা শোনা যায় না।
(২)
কয়েক মাস ধরে ব্যক্তিগত আক্রমণ এবং বিভ্রান্তিমূলক প্রচারণার শিকার হওয়ার পর সুডওয়ার্থকে চীন থেকে চলে যাওয়ার পরে বিবিসির টুইট করেছে “জন এর কাজ সত্যকে প্রকাশ করেছে যাচ্ছি না কর্তৃপক্ষ বিশ্বকে জানতে চাইনি” চীনা পুলিশ এর ক্যামেরাগুলি তার ছবিগুলি পাওয়ার জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল যা রাষ্ট্রীয় মিডিয়া অনলাইনে পোস্ট করেছিলো। H & M এবং Berberry এর মত গ্লোবাল ফ্যাশন ব্র্যান্ড গুলিকে চীনের নোট জেন্দের প্রতিক্রিয়ার শিকার হতে হয়েছিল যা সরকারিভাবে দেশটির সরকার দ্বারা সমর্থিত ছিল যখন H & M বলেছিল যে এটি মানবাধিকারের জন্য উদ্যোগের কারণে জিনজিয়াংয়ে তার সরবরাহ শৃংখলে যেকোনো ধরনের জোরপূর্বক প্রশ্ন নিষিদ্ধ করেছে। চীনা নোটজেনরা H & M কে চিনা বাজার থেকে বেরিয়ে যেতে বলেছে। Berberry, Adidas, Nike, and New balance এর মত আরো বেশ কয়েকটি সংস্থা আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড বিক্রি করে জিনজিয়াং তুলার বিরুদ্ধে একই রকম সমস্যা খুঁজে পেয়েছে।
(৩)
জন সুডওয়ার্থের একটি বিবিসির রিপোর্টে বলা হয়েছে বছরে অর্ধ মিলিয়নের বেশি সংখ্যালঘু কর্মীকে এমন পরিস্থিতিতে তোলা বাছাই করা হচ্ছে যা জবরদস্তির উচ্চ উদ্বেগের কারণ বলে মনে হচ্ছে। ওয়াশিংটনের ভাইক্টিমস অফ কমিউনিজস মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন এর একজন সিনিয়র ফেলোকে উদ্ধৃত করে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে প্রথমবারের মতো আমাদের কাছে শুধুমাত্র পোশাক তৈরিতে উইঘুরদের জোরপূর্বক শ্রমের প্রমাণ পাওয়া যায় না, এটি সরাসরি তুলা বাছাইয়ের বিষয়। দ্য গার্ডিয়ান ওয়াশিংটনে অবস্থিত সেন্টার ফর গ্লোবাল পুলিশের একটি প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়েছে জোরপূর্বক শ্রম ও কর্মসূচি এর মাধ্যমে তোলা বাছাই করতে বাধ্য করা লোকের সংখ্যা ৫৭০০০০। জানা গেছে যে চীন বিশ্বব্যাপী তুলা উৎপাদনের ২২ শতাংশ উৎপাদন করে। যার মধ্যে ৮৪ শতাংশ আসে জিনজিয়াং থেকে। জার্মান গবেষক আদ্রিয়ান জেনজ সেই তুলা খুঁজে পেয়েছেন। জিনজিয়াংয়ে উৎপাদিত হয় জোরপূর্বক শ্রম উইঘুর শ্রমিকদের বাছাই করার জন্য তাদের বাড়ি থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়া হয়। জার্মান গবেষককে শাস্তি দেওয়ার হুমকি দিয়েছে চীন।
(৪)
বিবিসির আর একটি প্রতিবেদনে যা বিশ্বব্যাপী চিনা নির্যাতনের নিন্দা জানিয়েছে, বন্দী শিবিরে উইঘুর নারীদের যৌন নির্যাতনের কথা প্রকাশ করেছে, পদ্ধতিগত ধর্ষণের প্রতিবেদন। জিনজিয়াং অঞ্চলে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া এখন চীনের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। চীনের বিরুদ্ধে জিনজিয়াংয়ে উইঘুরদের বিরুদ্ধে গণহত্যা চালানোর অভিযোগে সরকারিভাবে “শিক্ষাশিবির” নামে অভিহিত হন বন্দিশিবিরে ১০ লাখেরও বেশি উইকেট আটকে রাখার অভিযোগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যুক্তরাজ্য এবং কানাডার যৌথভাবে ভ্রমণ ও আর্থিক নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়েছে যার অন্তর্ভুক্ত। ৪ সিনিয়র চিনা কর্মকর্তার সম্পদ জব্দ করা হয়েছে। বেইজিং সাধারণত ইউরোপীয় আইন প্রণেতাদের বিরুদ্ধে জরিমানা আরবের হুমকি দিয়েছে কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বার্তা পাঠিয়েছে যে গুন্ডামি কাজ করবে না। নিষেধাজ্ঞা ছাড়াও অন্যান্য ইঙ্গিত রয়েছে যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের আশেপাশের দেশ গুলি চীনের আক্রমণাত্মক এবং জবরদস্তিমূলক আচরণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিচ্ছে। ‌ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এন্টনি ব্লিক্ঙেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অংশীদারদের তাদের ভাগ করা অর্থনৈতিক স্বার্থের অগ্রগতি এবং চীনের পদক্ষেপের মোকাবেলায় একত্রিত করার জন্য নেতৃত্ব দিয়েছেন।
(৫)
তিনি ন্যাটোর পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের নির্বাহি ইউরোপীয় কমিশনের সাথে কথা বলেছেন। ব্লিক্ঙেন চীনকে উল্লেখ করতে বলেছেন যে ইউএসএ একাই বিশ্বব্যাপী মোট দেশীয় পণ্য উৎপাদনের প্রায় ২৫ শতাংশ এবং ইউরোপ ও এশিয়া তাদের মিত্রদের সাথে ৬০ শতাংশ পর্যন্ত। যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্ররা একসাথে কাজ করবে এমন বেইজিংয়ের পক্ষে উপেক্ষা করা কঠিন হবে। ন্যাটোর সেক্রেটারি জেনারেল শক্তিশালী সামরিক জোট জেনস স্টলটেনবার্গ উল্লেখ করেছেন যে সিনেমার একটি দেশ যা আমাদের মুল্যবোধ কে ভাগ করে না। আমরা দেখতে পাই যে তারা যেভাবে হংকংয়ে গণতান্ত্রিক বিক্ষোভের সাথে মোকাবেলা করে কিভাবে তারা তাদের নিজেদের মধ্যে সংখ্যালঘুদের দমন করে। এবং কিভাবে তারা আন্তর্জাতিক নিয়ম ভিত্তিক আদেশকে দুর্বল করার চেষ্টা করে। চীনের বাইরে বসবাসকারী উইঘুর জনগোষ্ঠী থেকেও প্রতিবাদ আসছে। গত ২৫ মার্চ চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইয়ের তুরস্ক টুডেস অপরের বিরুদ্ধে আঙ্কারা এবং ইস্তাম্বুলে শত শত উইঘুর বিক্ষোভ করেছে।
(৬)
তুর্কি সরকারকে জিনজিয়াং অঞ্চলে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়ার দাবিতে। উইঘুর রা ঘটনাক্রমে চীনের জিনজিয়াং অঞ্চলে বসবাসকারী তুর্কি বংশভূত মুসলিম। তুরস্ক একসময় উইঘুরদের জন্য চ্যাম্পিয়ন ছিল কিন্তু সম্প্রতি চীনের সাথে অর্থনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলার পর তাদের দুর্দশার বিষয়ে সোচ্চার হয়েছে। কয়েক বছর আগে চীন ও তুরস্কের মধ্যে স্বাক্ষরিত একটি প্রত্যর্পণ চুক্তি উইঘুর সম্প্রদায়ের মধ্যে সংখ্যা তৈরি করেছে যে তারা যে দেশে পালিয়ে ছিল তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হতে পারে। চীন সম্প্রতি প্রত্যর্পণ চুক্তি অনুমোদন করেছে। যদিও তুরস্ক এখনো চুক্তিটি অনুমোদন করেনি। তুরস্কে বসবাসরত উইঘুর শরণার্থীরা আশঙ্কা করেছেন যে চীন চুক্তি অনুমোদনের জন্য তুরস্কের উপর চাপ দিচ্ছে। এরপর তাদের চীনের কাছে হস্তান্তর করা হবে। কেউ মনে করতে পারেন যে চীন আম স্বাক্ষরের জন্য নেপালের উত্তর একই ‌ রকম চাপ প্রয়োগ করছে প্রত্যর্পণ চুক্তি যাতে তিব্বতি শরণার্থীদের নেপালে বসতি স্থাপন বান নেপাল হয়ে ভারতে পালিয়ে যেতে বাধা দেওয়া হয়। একইভাবে তিব্বতের ট্রাজেডি এবং জিনজিয়াংয়ের ট্রাজেডির মধ্যে কিছু মিল রয়েছে। জোরপূর্বক এই অঞ্চল গুলিকে চিনা মূল ধারার সাথে একীভূত করার জন্য কমিউনিস্টদের দ্বারা চীন দখল করার পর থেকে এই সুদূর প্রসারী অঞ্চলগুলিতে হান চীনাদের বৃহৎ আকারে অভিবাসনকে উৎসাহিত করা হয়েছে। একটি সময় ছিল যখন উইঘুর ওরা জিনজিয়াংয়ে অপ্রতিরোধ্য সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল কিন্তু এখন এই অঞ্চলের জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ হান চীনা বলে অনুমান করা হয়।
(৭)
জিনজিয়াং এর বড় শহরগুলোতে হান চীনারা সংখ্যাগরিষ্ঠ অর্থনৈতিকভাবে ভালো করছে এবং সেরা চাকরি দখল করছে। এসবই উইঘুরদের মধ্যে ক্ষোভের জন্ম দিয়েছে। তাদের পরিচয় ও সংস্কৃতি হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা সম্মুখীন হয়ে তাদের মধ্যে একটি বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন গড়ে উঠেছে। অর্থনৈতিক সাংস্কৃতিক কারণে সৃষ্ট জাতিগত উত্তেজনাকে হিংসাত্মক ঘটনার মূল কারণ বলা হয় যা ২০০৯ সাল থেকে বেড়েছে। চীন মানবাধিকারের প্রতি সামান্যতম বিবেচনা করে দমনমূলক পদক্ষেপ এর সাথে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই জাতীয় আরো সংবাদ
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!